তহবিল সংগ্রহে পিছিয়ে উদ্বিগ্ন ট্রাম্প শিবির

  • আগস্টে রিপাবলিকান দলের তহবিলে ২১০ আর বাইডেনের তহবিলে ৩৬৫ মিলিয়ন ডলার জমা

  • নির্বাচনে কোন প্রার্থীর প্রতি সমর্থন বাড়ছে, তার একটা সূচক বলে ধরা হয় তহবিলে অর্থ প্রবাহকে

  • সাংবাদিক বব উডওয়ার্ডসের প্রকাশিতব্য একটি বই নিয়ে উৎকণ্ঠায় রিপাবলিকানরা

বিজ্ঞাপন
ট্রাম্পের নির্বাচনী তহবিলে টান পড়েছে। রিপাবলিকান বা ডেমোক্রেটিক দলের নির্বাচনী তহবিলে নগদ কী পরিমাণ অর্থ আছে—তা কেউ প্রকাশ করেনি। যদিও প্রতি মাসে সংগ্রহের কথা জানানো হচ্ছে

আমেরিকার নগরকেন্দ্র ছাড়া এসব প্রচারে ব্যাপক প্রভাব দেখা যায় জনমত সৃষ্টিতে। নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে প্রচারণাও তুঙ্গে ওঠে। প্রতিদ্বন্দ্বী রাজ্যগুলোতে দুই দলের টানা রেডিও, টিভিতে প্রচার এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে।

ব্লুমবার্গ নিউজ–এর তথ্য মতে, ট্রাম্পের নির্বাচনী তহবিলে টান পড়েছে। রিপাবলিকান বা ডেমোক্রেটিক দলের নির্বাচনী তহবিলে নগদ কী পরিমাণ অর্থ আছে—তা কেউ প্রকাশ করেনি। যদিও প্রতি মাসে সংগ্রহের কথা জানানো হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আগস্ট মাসে দুই দলেরই কনভেনশন ছিল। এই মাসে রিপাবলিকান দল ট্রাম্পের প্রচার তহবিলে সংগ্রহ করেছে ২১০ মিলিয়ন ডলার। বাইডেনের তহবিলে জমা পড়েছে ৩৬৫ মিলিয়ন ডলার। ডেমোক্র্যাটদের পক্ষ থেকে মনে কর হচ্ছে, ট্রাম্পের প্রচার তহবিলে আগে থেকে যে নগদ অর্থ ছিল, তার কাছাকাছি তারা চলে এসেছে।

ট্রাম্পের নির্বাচনী তহবিলে অর্থ প্রবাহের এই শ্লথগতি রিপাবলিকানদের উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। কথা উঠেছে, বেশ আগেভাগেই প্রচার শিবির তহবিল থেকে বেশি অর্থ ব্যয় করা হয়েছে। রিপাবলিকান দাতারা এ নিয়ে প্রশ্নও তুলছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিপাবলিকান দলের মোটা অঙ্কের দাতা ড্যান এবারহার্ট পলিটিকো নামের সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, তিনি বিস্মিত হয়েছেন। তাঁর ধারণা ছিল, ডেমোক্র্যাটদের চেয়ে অনেক বেশি অর্থ তাদের আছে। এখন শুনছেন ভিন্ন কথা।

কমলা হ্যারিসকে ডেমোক্রেটিক দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে, এ সংবাদ ঘোষণার দুই দিনের মধ্যেই দলটি নির্বাচনী তহবিলে ৪৮ মিলিয়ন ডলার সংগ্রহ করে।

নির্বাচনী প্রচার সামাল দিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রয়োজনে তাঁর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে খরচের কথা বলেছেন। ব্লুমবার্গ নিউজের তথ্য মতে, ট্রাম্প নিজের তহবিল থেকে প্রচার তহবিলে ১০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার চিন্তা করছেন। ২০১৬ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের তহবিল থেকে প্রচারণা তহবিলে ৬৬ মিলিয়ন ডলার দিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচনে পুনর্নির্বাচনের জন্য দাঁড়ানো কোন প্রার্থী তহবিল সংগ্রহে পিছিয়ে থাকা কাম্য নয়। এ বিষয়টি কোন কোন রিপাবলিকানদের উদ্বিগ্ন করে তুলেছে বলে মার্কিন সংবাদমাধ্যমের বিশ্লেষণে উঠে আসছে।
কেন স্পেইন, রিপাবলিকান দলের পরামর্শক

নির্বাচনে কোন প্রার্থীর প্রতি সমর্থন বাড়ছে, তার একটা সূচক বলে মনে করা হয় প্রচার তহবিলে অর্থ প্রবাহ দেখে। রিপাবলিকান দলের পরামর্শক কেন স্পেইন বলেন, চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতার নির্বাচনে পুনর্নির্বাচনের জন্য দাঁড়ানো কোন প্রার্থী তহবিল সংগ্রহে পিছিয়ে থাকা কাম্য নয়। এ বিষয়টি কোন কোন রিপাবলিকানদের উদ্বিগ্ন করে তুলেছে বলে মার্কিন সংবাদমাধ্যমের বিশ্লেষণে উঠে আসছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচার ব্যবস্থাপক বিল স্টেপেইন ৯ সেপ্টেম্বর বলেন, নির্বাচনী বার্তা সর্বত্র পৌঁছানোর সব সামর্থ্য তাদের রয়েছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে দেশের অর্থনীতির উন্নয়নের জন্য জরুরি এবং বাইডেন নৈরাজ্যবাদীদের সহযোগী—এই বার্তা সর্বত্র পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে বলে বলেছেন বিল স্টেইপেন। রেডিও, টিভিসহ নানা মাধ্যমে এ নিয়ে পর্যাপ্ত প্রচার চালানো হবে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রিপাবলিকান দলের কনভেনশন চলাকালে চার দিনে ৭৬ মিলিয়ন ডলার সংগ্রহ হয়েছে বলে ট্রাম্পের প্রচার শিবির থেকে জানানো হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নির্বাচনী তহবিলে রেকর্ড পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ হয়েছিল। এবারের নির্বাচনে ট্রাম্প ও বাইডেন উভয়েই সে রেকর্ড অতিক্রম করেছেন। ওবামা ২০০৮ সালে সেপ্টেম্বরে এক মাসে ২৯৩ মিলিয়ন ডলার সংগ্রহ করেছিলেন। জো বাইডেন আগস্ট মাসে সে রেকর্ড অতিক্রম করেছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জাতীয় জনমত জরিপে এখনো ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন এগিয়ে আছেন। গড়ে সাত শতাংশ এগিয়ে থাকা প্রার্থীর পক্ষে লোকজনের সমর্থক সূচক চাঁদা সংগ্রহকে প্রচার শিবির থেকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা যাচ্ছে।

এর মধ্যে বিখ্যাত সাংবাদিক বব উডওয়ার্ডসের প্রকাশিতব্য একটি বইয়ের তথ্য নিয়েও রিপাবলিকানদের মধ্যে উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাৎকারভিত্তিক এই বইয়ে ট্রাম্প স্বীকার করেছেন, তিনি ফেব্রুয়ারি মাসেই করোনাভাইরাসের ভয়াবহতার কথা জানতেন। তা জেনেও তিনি আমেরিকার লোকজনকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। এখন ট্রাম্প বলেছেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি জনগণকে ভয় দেখাতে পারেন না। অভয়ের বাণী শুনিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডেমোক্র্যাটরা অভিযোগ করছেন, প্রেসিডেন্ট সঠিক সময়ে যথাযথ উদ্যোগ নিলে আমেরিকায় প্রায় ১ লাখ ৯০ হাজার মানুষের মৃত্যু হত না।

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর নিজের বক্তব্য থেকেই ধরা পড়ছেন বলে উদারনৈতিক আমেরিকান গণমাধ্যম সংবাদ পরিবেশন করছে। পাশাপাশি তাঁর নির্বাচনী তহবিলে অর্থের ঘাটতির সংবাদকেও ডেমোক্র্যাটরা নিজেদের জন্য ভালো বলে মনে করেছেন। আগামী কয়েক সপ্তাহ আমেরিকার জনগণের মনোভাব দেখেই আগাম অনুমান করা যাবে এসবের কতটা প্রভাব পড়বে জাতীয় নির্বাচনে। জানা যাবে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন অর্থের জোরে না গলার জোরে!

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন