বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিমান হামলায় নিহত কানাডার ৬ নাগরিকের স্বামী-স্ত্রী, সন্তান, ভাতিজা কিংবা নাতি-নাতনিরা এই ক্ষতিপূরণের অর্থ পাবেন। গতকাল সোমবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাঁদের আইনজীবী মার্ক আর্নল্ড।

মার্ক আর্নল্ড এক বিবৃতিতে বলেছেন, বিমান হামলার ঘটনায় কানাডা ও বিশ্বের অন্যান্য দেশে ইরানের সম্পদ জব্দ করতে কর্তৃপক্ষকে রাজি করানোর চেষ্টা করছেন তিনি ও তাঁর টিম। তিনি আরও বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইরানের তেলবাহী জাহাজ রয়েছে, যেগুলো জব্দ করে নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে ঋণ পরিশোধে অর্থসহায়তা করার চেষ্টা করবেন তাঁরা।

গত শুক্রবার অন্টারিও সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এডওয়ার্ড বেলোবাবা এ আদেশ দেন, যা সোমবার জানালেন আইনজীবী আর্নল্ড। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে কানাডার একটি বিশেষ ফরেনসিক টিম হামলার বিষয়টি তদন্ত করে। সেখানে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটিকে বেপরোয়াভাবে ভূপাতিত করার অভিযোগ আনে ইরানের বিরুদ্ধে। যদিও ইরান এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করে এটিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে দাবি করে।

ওই সময় ইরান দাবি করে, ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের একটি স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ সাইটের কাছাকাছি যাত্রীবাহী বিমানটি চলে এলে ‘মানব ত্রুটি’র কারণে বিমানটি ভূপাতিত হয়। ওই ঘটনার পর থেকে কানাডা-যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো ইরানের ওপর চাপ প্রয়োগ অব্যাহত রাখে।

উত্তর আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন