default-image

বাংলাদেশে বিশ্বমানের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার প্রত্যয়ে প্রাচ্য থেকে পাশ্চাত্য চষে বেড়াচ্ছেন ডা. মোজাম্মেল হক। এই প্রথম চট্টগ্রাম থেকে সোজা আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো আমেরিকান কলেজ অব সার্জনে গত ২৭-৩০ অক্টোবর ‍তিন দিনব্যাপী ক্লিনিক্যাল কংগ্রেসে যোগ দিয়ে ‘আমেরিকান কলেজ অব সার্জন’ ফেলোশিপ অর্জন করে মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন।
এদিকে মরুর দেশ কাতারে চার দিনব্যাপী (১-৪ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব অ্যাসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্টিক সার্জন কংগ্রেস হয়ে গেল। এতে ডা. মোজাম্মেল হক শিশুদের জটিল রোগ নিয়ে তৈরি তিনটি পেপার উপস্থাপন করেন, যা বিশ্বের জটিল রোগে আক্রান্ত সব শিশুর সহজ উন্নত সার্জারি দিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। বাংলাদেশের খ্যাতিমান শিশু সার্জন ড. তাহমিনা বানুর নেতৃত্বে ২০ জন উদীয়মান শিশু সার্জন ‘ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব অ্যাসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্টিক সার্জন’ কংগ্রেসে অংশ নেন।
চট্টগ্রামের পেডিয়াট্টিক সার্জন ডা. মোজাম্মেল হক জানান, আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো মসকন ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী সার্জিক্যাল কনভেনশনে পৃথিবীর ৭২টি দেশ থেকে ১ হাজার ৯৯৩ জন সার্জন অংশ নেন। এতে বাংলাদেশ থেকে এবার দেড় শ আবেদন করলেও ৪০ জন অংশ নেওয়ার সুযোগ পান।
ডা. মোজাম্মেল জানান, আমেরিকার চিকিৎসা ব্যবস্থায় প্রযুক্তিগত সমৃদ্ধির শিখরে পেয়েছে। এখানে এসে বুঝতে পারলাম, আমেরিকা এখনো পৃথিবীতে সবার সেরা। কারণ আমেরিকায় সর্বশেষ আপডেট টেকনোলজি ব্যবহার করে সহজে রোবটিক সার্জারি করে থাকেন। এর মধ্য দিয়ে একজন সার্জিক্যাল রোগীকে অল্প সময়ে নিখুঁত অপারেশনের মাধ্যমে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা যায়। এ ধরনের সেমিনার সারা পৃথিবীর শিশু সার্জনদের মধ্যে একটা সেতুবন্ধন তৈরি করে।
ড.তাহমিনা বানু বলেন, শিশুদের জন্য বাসযোগ্য পৃথিবী গড়তে প্রতি বছর ওয়ার্ল্ড ফেডারেশন অব অ্যাসোসিয়েশন অব পেডিয়াট্টিক সার্জনস (ডব্লিউওএফএপিএস) এ ধরনের সেমিনার ও সার্জিক্যাল কংগ্রেস করে থাকেন। এতে অংশগ্রহণের মাধ্যমে আধুনিক গবেষণা ও বিশ্বমানের উন্নত চিকিৎসা সেবা বাংলাদেশে সম্ভব হয়ে উঠবে।
চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের পেডিয়াট্টিক বিভাগের প্রধান ড. মোজাম্মেল হক বলেন, চট্টগ্রামের এই হাসপাতালে প্রতি মাসে শতাধিক অস্ত্রোপচার করা হয়। এদের অধিকাংশ জন্মগত ত্রুটিজনিত শিশুরোগী। দিনদিন চট্টগ্রামসহ সারা দেশে এসব রোগী বাড়ছে। তাই প্রয়োজন উন্নত আধুনিক চিকিৎসা। আর এ জন্য বিশ্বমানের সার্জিক্যাল কংগ্রেস ও গবেষণায় বাংলাদেশের তরুণ মেধাবী চিকিৎসকদের অংশগ্রহণ প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0